শিরোনাম:
শিরোনাম:
তৃতীয় দিনের ন্যায় গাইবান্ধা সদরের মোল্লারচরের বন্যাতদের মাঝে ত্রান বিতরন গাইবান্ধা সদরের দুই ইউনিয়নের বন্যার্তদের মাঝে ত্রাণ ও শুকনো খাবার বিতরণ গোবিন্দগঞ্জে শিশুকে সংঘবদ্ধ ধর্ষণের মামলায় গ্রেপ্তার কোটা নিয়ে আপিল বিভাগে শুনানি বুধবার গাইবান্ধায় বন্যা কবলিত এলাকা পরিদর্শন ও বন্যার্তদের মাঝে ত্রাণ বিতরন বিজ্ঞাপনের জন্য ফি নিতে পারবে না বিআরটিএ: হাইকোর্ট নেপালে বন্যা-ভূমিধসে ১৪ জনের প্রাণহানি তিস্তা প্রকল্পে ভারত-চীন একসঙ্গে কাজ করতে রাজি: ত্রাণ প্রতিমন্ত্রী বগুড়ায় পানিতে ডুবে দুই বোনের মৃত্যু গাইবান্ধায় গৃহবধূর গোসলের ভিডিও ধারণের সময় পুলিশ সদস্য আটক
ঘোষণা:
আমাদের ওয়েবসাইটে স্বাগতম...

তাপদাহে এসি বিক্রি বেড়েছে দ্বিগুণ

নিজস্ব প্রতিবেদক / ২৭ বার পঠিত
প্রকাশের সময়: সোমবার, ১৭ এপ্রিল, ২০২৩, ২:২৭ অপরাহ্ন

টানা কয়েকদিনের তীব্র গরমে অতিষ্ঠ জনজীবন। গড়ে ৩৯-৪০ ডিগ্রি তাপমাত্রা ঘুরপাক খাচ্ছে।প্রচণ্ড গরমে দুঃসহ জীবনযাপন করছেন নগরবাসী। ৫৮ বছর পর তাপমাত্রার রেকর্ড গড়েছে রাজধানীতে। গরম থেকে কিছুটা রক্ষা পেতে শীতাতপ নিয়ন্ত্রণ যন্ত্রের (এসি)দোকানে ভিড় করছেন নগরবাসী। সাধ্যের মধ্যে এসি কিনতে ক্রেতারা ঘুরে বেড়াচ্ছেন একাধিক ইলেকট্রনিকসের শো-রুমগুলোতে। বিক্রেতারা বলছেন প্রতিবছর গরমে এসি বিক্রি বাড়ে তবে এটা এবার দ্বিগুণ হয়েছে।
মিরপুরে শেওড়াপাড়ার বাসিন্দা ফাহমিদা আফরোজ বেশ কয়েকটি শো-রুম ঘুরে সেনপাড়ার একটি শো-রুম থেকে দেড় টনের একটা এসি কিনেছেন। প্রথমে এসি কিস্তিতে কিনবেন চিন্তা করেছিলেন। কিন্তু ডাউন পেমেন্ট ও কিস্তিতে এসির মূল্য বেশি পড়বে ভেবে এককালীন টাকা পরিশোধে করে তিনি এসিটি ক্রয় করেছেন।তিনি বাংলানিউজকে বলেন, পাঁচতলা বাসার টপ ফ্লোরে বসবাস করি, বাচ্চারা এ গরমে অসুস্থ হয়ে পড়েছে। দিনের বেলা সূর্যের তাপে বাসায় থাকা যায় না এবং রাতেও ঘুমাতে পারি না। কোনভাবেই গরম সহ্য করতে না পেরে দু’দিন বিভিন্ন কোম্পানির শো-রুম ঘুরে সূলভ মূল্যে একটি দেড় টন এসি কিনলাম। ভেবেছিলাম কিস্তিতে এসি ক্রয় করবো কিন্তু এতে করে আমাকে প্রায় ১০ থেকে ১৫ হাজার বেশি গুণতে হবে তাই কষ্ট করে হলেও নগদেই কিনে নিলাম।এদিকে গরমের কারণে এ বছর এসি বিক্রি দ্বিগুণ বেড়েছে বলে জানিয়েছেন শেওড়াপাড়ার ওয়ালটন প্লাজায় কর্মরত মো. আমিনুর রহমান। তিনি বাংলানিউজকে বলেন, প্রতিবছরই এ সময় এসি বিক্রি বেড়ে যায়, তবে কয়েকদিনের তীব্র গরমে প্রচুর এসি বিক্রি হচ্ছে। সারাদিনই আমরা এসি বিক্রিতে ব্যস্ত সময় পার করছি। তবে এসির দাম ক্রেতাদের ক্রয় ক্ষমতার মধ্যেই রয়েছে।প্রতিনিয়ত যেভাবে গরম বাড়ছে তাতে ফ্যানের বাতাসে স্বাভাবিক থাকা সম্ভব হচ্ছে না। তাই কিস্তিতে আজই একটি এসি কিনবো বলে জানালেন একটি বেসরকারি প্রতিষ্ঠানে কর্মরত আতিকুর রহমান। তিনি বাংলানিউজকে বলেন, কিস্তি সুবিধা থাকায় আমাদের মতো মধ্যবিত্ত পরিবারগুলো এ গরমে এসি কিনতে সাহস করছেন। এছাড়া বিদ্যুৎ বিলের ভয়ে আগে কখনো এসি কিনতে সাহস করিনি। তবে কোম্পানিগুলো বিদ্যুৎ সাশ্রয়ী ইনভার্টার এসি বাজারে আনায় আমার মতো অনেকেই এসি কিনছেন।
অন্যদিকে, চাহিদা বেড়ে যাওয়ায় এসি ক্রয় করেও ফিটিংস এ কিছুটা বিড়ম্বনায় পড়তে হচ্ছে গ্রাহকদের। চাহিদা বাড়ার কারণে এসি নির্ধারিত সময়ে ডেলিভারি দিতে পারছেন না শো-রুমগুলো। হঠাৎ চাহিদা বেড়ে যাওয়ার কিছুটা সমস্যা হচ্ছে বলে জানালেন মিরপুরের মনিপুরের বেগম রোকেয়া সরণীতে অবস্থিত গ্রীন এয়ার শো-রুমের এক সেলস কর্মকর্তা। তিনি বলেন, আমাদের এখানে ২৫ জন ইলেকট্রিশিয়ান কাজ করছেন অর্ডার বেশি থাকায় কিছুটা সমস্যায় পড়তে হচ্ছে, তারপরও নির্ধারিত সময়েই ডেলিভারির চেষ্টা করছি।একটি এসি ফিটিংস করতে দুইজন লোক লাগে। সকাল থেকে শুরু করে সারাদিনে ৩ থেকে ৪টি এসি ফিটিংস করা যায়। ২৫ জন লোক কাজ করেও কুলাতে পারছে না। অথচ মাসখানেক আগেও কোনো কোনো দিন একটি ফিটিংসের কাজ হতো না বলে জানালেন একই প্রতিষ্ঠানের ইলেকট্রিশিয়ান (এসি মিস্ত্রী) মো. হৃদয়। তিনি বলেন, প্রায় ৮ বছর ধরে এ প্রতিষ্ঠানে চাকরি করছি, প্রতি বছর গরমে কাজ বেড়ে যায় কিন্তু এ বছর কাজের এতটাই চাপ যে দম ফেলার সময় পাচ্ছি না।তবে বৈশ্বিক জলবায়ু পরিবর্তনের কারণে যেভাবে তাপমাত্রা বাড়ছে আগামীতে দেশে এসির চাহিদা কয়েকগুণ বাড়বে বলে মনে করছেন সংশ্লিষ্টরা।

 Save as PDF


এ জাতীয় আরো খবর...
এক ক্লিকে বিভাগের খবর